রূপগঞ্জে ভাইস চেয়ারম্যান সোহেলের শটগানের গুলিতে যুবককে হত্যার অভিযোগ

0
1162

ডেস্ক রিপোর্ট : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ভাইস চেয়ারম্যান শাহারিয়ার পান্না সোহেলের বিরুদ্ধে আব্দুর রশিদ (৩৫) নামে এক যুবককে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যার করেছে বলে অভিযোগ করেছেন নিহতের স্বজনরা। তবে, ভাইস চেয়ারম্যান তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করেন।

শনিবার রাত ৯ টার দিকে উপজেলার মুড়াপাড়া ইউনিয়নের মীরকুটিরছেও চৌরাস্তা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। রবিবার সকালে নিহতের পরিবারের স্বজনরা অভিযুক্তদের বাড়িঘরে হামলা ভাংচুর ও আগুন দিয়েছে বলেও জানা গেছে।

এদিকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে ওই রাতেই নিহতের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় সন্দেহভাজন ও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাচঁজনকে আটক করেছে রূপগঞ্জ থানা পুলিশ। তবে এ বিষয়ে রোববার বিকাল পর্যন্ত থানায় কোন মামলা দায়ের করা হয়নি। এদিকে এ হত্যাকান্ড নিয়ে প্রশাসন, প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসীর ভিন্নমত রয়েছে বলে জানা গেছে। নিহত আব্দুর রশিদ মাছিমপুরের মোল্লা বাড়ীর মোহাম্মদ মৃত জলিলের ছেলে ও মুড়াপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের ৫নং ওয়ার্ডের বিনা প্রতিদ্বিতায় নির্বাচিত ইউপি সদস্য তাওলাদ হোসেনের শ্যালক।

নিহত আব্দুর রশিদের বোন জামাতা ও ইউপি সদস্য তাওলাদ হোসেন অভিযোগ করে জানান, তিনি মুড়াপাড়া ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ড থেকে বিনাপ্রতিদ্বন্দিতায় ইউপি সদস্য নির্বাচিত হন। পাশর্^বর্তী ৬ নং ওয়ার্ড থেকে ইউপি সদস্য পদে সিরাজল ইসলাম, আব্দুর কুদ্দুস ও আবু ভুইয়া নির্বাচন করছেন। উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান শাহারিয়ার পান্না সোহেল ওই ওয়ার্ডের সিরাজুল ইসলামকে সমর্থন করে আসছিল। ভাইস চেয়ারম্যানের লোকজন ও সিরাজুল ইসলামের লোকজন মিলে অন্যান্য প্রার্থীদের পোষ্টার ছিড়ে ফেলে ও মাইক ভেঙ্গে ফেলেন। শনিবার সন্ধ্যায় ৬ নং ওয়ার্ডের প্রতিদ্বন্দি প্রার্থী আব্দুর কুদ্দুস ও ফয়েজ আলীর মাইক চলছিলো তখন আরেক প্রার্থী সিরাজুল ইসলাম তাদের প্রচারণায় বাধা দিয়ে মাইকের তার ছিড়ে ফেলে। এ বিষয়টি প্রার্থী আব্দুর কুদ্দুস ও ফয়েজ আলী মিলে সদ্য নির্বাচিত ইউপি সদস্য তাওলাদ হোসেনকে জানান। এ নিয়ে রাত ৯ টার দিকে মিরকুটিরছেও এলাকায় সিরাজুল ইসলামের নির্বাচনী ক্যাম্পে শালিস বসে। শালিসে ভাইস চেয়ারম্যান শাহারিয়ার পান্না সোহেলসহ তার লোকজন ও তাওলাদ হোসেন, রশিদসহ তাদের লোকজন উপস্থিত ছিলেন। শালিসের এক পর্যায়ে শাহারিয়ার পান্না সোহেলের লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে ককটেল বিস্ফোরণ করতে থাকে। এসময় ভাইস চেয়ারম্যানের গানম্যান জসিম উদ্দিন তাওলাদ হোসেন ও তার লোকজনকে লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করতে থাকে। এক পর্যায়ে ভাইস চেয়ারম্যান সোহেল সঙ্গে থাকা শটগান মাথায় ঠেকিয়ে তাওলাদ হোসেনের শ্যালক রশিদকে গুলি করে। পরে তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে রাত ১১ টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রূপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান শাহরিয়ার পান্না সোহেল বলেন, তাওলাদসহ তার সন্ত্রাসী বাহিনী সশস্ত্র অবস্থায় ৫ নং ওয়ার্ড মাছিমপুর এলাকা থেকে ৬ নং ওয়ার্ড মিরকুটিছেও এলাকায় এসে আমার ও আমার এলাকার লোকজনের উপর অতর্কিত হামলা চালায় ও গুলি বর্ষণ শুরু করেন। তাদের নিজেদের ছোড়া গুলিতেই রশিদ গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যায়। এখন আমাকেসহ এলাকার নিরীহ মানুষকে ফাঁসানোর চেষ্টা চলছে।

এদিকে, এ হত্যাকান্ডের পর থেকে সাধারণ মানুষের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। রবিবার সকালে অভিযুক্ত হামিদ ও রফিক নামে দুইজনের বাড়িঘরে হামলা ভাংচুর ও বাড়িতে আগুন দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। আগামী ১১ নভেম্বরের নির্বাচনে আরো সহিংসতা হওয়ার আশঙ্কা করছে সাধারণ মানুষ। এ ঘটনার পর এলাকায় থমথমে ভাব বিরাজ করছে।

রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এএফএম সায়েদ বলেন, নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় পাচঁজনকে প্রাথমিক জিজ্ঞাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ। ঘটনার সাথে জড়িত অন্যদের আটকের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে। তবে এ ব্যাপারে নিহতের পরিবারের কাছ থেকে কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ দিলে মামলা নেওয়া হবে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here