রূপগঞ্জে স্মার্ট ফোন ব্যবহার বাড়ছে স্কুল ও কলেজ শিক্ষার্থীদের

0
433

ফরিদুল মিঠু : ন্যানোমিটার দৈর্ঘ্যের করোনাভাইরাস ( COVID-19) বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে আলোচিত বিষয়। সারা বিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশে ও এর ভয়াবহতা কোনো অংশে কম নয়।স্কুল, কলেজ সহ বিভিন্ন অফিস,আদালত ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের অবস্থা ছিল খুবই সূচনীয়। অন্যান্য প্রতিষ্ঠান সীমিত আকারে খুললেও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলো দীর্ঘ নয় মাসের ও বেশী সময় যাবৎ বন্ধ রয়েছে। স্কুল, কলেজ বন্ধ এবং বার্ষিক পরীক্ষা হবে কি হবে না এই অনিশ্চয়তার কারণে শিক্ষা ক্ষেত্রে দেখা দিয়েছে স্থবিরতা।

বিজনেস ইনসাইডারের তথ্যানুসারে, বিশ্বের প্রায় ১৮৮ টি দেশের শিক্ষার্থীরা করোনাকালে সরাসরি ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে।বাংলাদেশ তার মধ্যে অন্যতম। করোনা কালীন সময়ে শিক্ষার্থীরা সময় কাটাচ্ছে PUBG, ( পাবজি ) Free Fire, Mobile Legends সহ বেশ কিছু ভিডিও গেমস খেলে। রূপগঞ্জে স্মার্টফোন ব্যবহারে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা ঝুঁকছেন সবচেয়ে বেশী। নাসরিন বেগম নামের এক অভিভাবকের সাথে কথা বলে জানতে পারি, তার ছেলে রাজিম আহমেদ প্রায় সারাদিনই ব্যস্ত থাকে স্মার্টফোন নিয়ে। শত চেষ্টা করেও থামাতে পারেনি তাকে।

আরেক অভিভাবক সোলমান মিয়ার একমাত্র সন্তান নাঈম। বায়না ধরে বাবা-মার কাছ থেকে হাতিয়ে নেয় বিশ হাজার টাকা মূল্যের স্মার্টফোন। অতিরিক্ত স্মার্টফোন ব্যবহার করার কারনে শিক্ষার্থীদের শারীরিক ও মানসিক উভয় প্রকার সমস্যা দেখা দিচ্ছে। গবেষকদের মতে,স্মার্টফোনের পর্দার নীলচে আলো চরম ক্ষতিকারক এবং স্মার্টফোন অতিরিক্ত ব্যবহারের ফলে দীর্ঘমেয়াদী চোখের ক্ষতি হতে পারে। চোখ জ্বালা, মাথা ব্যথা এবং দূরদৃষ্টি কমে যাওয়ার মতো রোগ গুলো স্মার্টফোন ও কম্পিউটার ব্যবহারের সঙ্গে জড়িত। হেডফোন দিয়ে উচ্চশব্দে গান শুনলে অন্তকর্ণের কোষ গুলোর ওপর প্রভাব পড়ে এবং মস্তিষ্কে অস্বাভাবিক আচরণ করে।একসময় বধির হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে।

অতিরিক্ত সময় ধরে স্মার্টফোন ব্যবহারের ফলে ক্ষুধামন্দা,স্বাস্থ্যহীনতা ও মেজাজ খিটখিটে হওয়া সহ বিভিন্ন উপসর্গ দেখা দেয়। হতে পারে শরীরের অস্থি-সন্ধি গুলোর ক্ষতি। আরেক গবেষণায় দেখা গেছে,অতিরিক্ত স্মার্টফোন ব্যবহারের ফলে মস্তিষ্কে ক্যান্সারের সম্ভাবনা থাকে।

ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে পুরুষের প্রজননতন্ত্রের ও।গবেষকদের দাবি,স্মার্টফোন থেকে নির্গত তরঙ্গ শুক্রাণুর ওপর প্রভাব ফেলে এবং শুক্রাণুর ঘনত্ব কমিয়ে দিতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here