ভোলাবতে ধর্ষণ মামলা থেকে ভাইকে বাঁচাতে স্বামীর বিরুদ্ধে স্ত্রীর নির্যাতন মামলা

0
174

ডেস্ক রিপোর্ট : নিজের কন্যা শিশুর ধর্ষণের ঘটনায় দায়ের করা মামলা থেকে সৎ ভাইকে বাঁচাতে স্বামীর বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করেছেন স্ত্রী। ধর্ষণ মামলার প্রায় এক মাস পর স্বামীর বিরুদ্ধে স্ত্রী নারায়ণগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতে এ মামলা দায়ের করেন।

এদিকে ধর্ষণের মামলা তুলে না নিলে লম্পট ধর্ষক শিশুটির পরিবারকে হত্যা করে বস্তায় ভরে শীতলক্ষ্যায় ডুবিয়ে দিবে এমন হুমকি দিচ্ছে। মামলা তুলে নিতে ফের শনিবার সকালে শিশুটির পিতাকে ঐ লম্পট হুমকি দেয়।

বর্তমানে পরিবারটি চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। ঘটনাটি রূপগঞ্জ উপজেলার ভোলাব ইউনিয়নের ভোলাবো বেপারী পাড়া এলাকায়।

রূপগঞ্জ থানার মামলার এজাহার সূত্রে দেখা গেছে, গত ১৭ জানুয়ারী সাড়ে তিন বছরের শিশু তার নানা বাড়ি ভোলাবো বেপারী বাড়ি বেড়াতে যায়। ঐদিন সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টার দিকে শিশুটির লম্পট মামা শাকিল বেপারি তার ঘরে নিয়ে শিশুটিকে ধর্ষণ করে। শিশুটির চিৎকারে পরিবার ও স্থানীয় লোকজন এগিয়ে আসলে লম্পট শাকিল বেপারি পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় ধর্ষণের শিকার শিশুর পিতা বদরুজ্জামান মোল্লা বাদী হয়ে রূপগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করেন। মামলার এক সপ্তাহ পর মামলা তুলে নিতে ঐ লম্পট বদরুজ্জামানের বড় ভাই কামরুজ্জামানের বাড়িতে হামলা ও ভাংচুর চালায়। এ ঘটনায়ও রূপগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করা হয়।

ধর্ষিতার পিতা বদরুজ্জামান বলেন, মামলা দায়েরের পর থেকে তার স্ত্রী বেদেনা বেগম তার ভাইয়ের বিরুদ্ধে মামলা তুলে নিতে অনুরোধ করেন। একপর্যায়ে মামলা তুলে না নেওয়ায় সে তার বাপের বাড়ি চলে যায়। পরে বেদেনা বেগম বাদী হয়ে আমিসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জ আদালতে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করে। বদরুজ্জামান আদালত থেকে জামিনে বের হয়ে আসে।

এদিকে, ধর্ষণের ঘটনায় আদালত থেকে জামিনে বের হয়ে এসে শাকিল বেপারী আরো বেপোরোয়া হয়ে উঠে। মামলা তুলে নিতে শিশুর পিতাকে অব্যাহত হুমকি দিচ্ছে। মামলা তুলে না নিলে ধর্ষণের শিকার শিশু ও তার পরিবারকে হত্যা করে বস্তায় ভরে শীতলক্ষ্যায় ডুবিয়ে দেওয়া হবে বলে হুমকি দিয়েছে।

শনিবার সকালে শাকিল ফের শিশুটির পিতাকে মামলা তুলে নিতে এক সপ্তাহের সময় বেঁধে দিয়ে শাসিয়ে এসেছে।
এ ব্যাপারে শিশুটির নানা ও শাকিল ব্যাপারীর পিতা সফিউদ্দিন বেপারীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ধর্ষণের ঘটনা মিথ্যা। আমার ছেলেকে ফাঁসাতে সে এ নাটক সাজিয়েছে। যৌতুক দাবী করে না পেয়ে মিথ্যা মামলা করেছে।

রূপগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মাহমুদুল হাসান বলেন, শিশু ধর্ষণের ঘটনায় মামলা হয়েছিলো। এরপর কি অবস্থা হয়েছে আমার জানা নেই। তবে হুমকি-ধামকি দিলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here