মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪ ১১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

১৯ বছর বয়সী ভারতীয় তরুণের বিরুদ্ধে ইন্টারপোলের রেড নোটিশ
প্রকাশ: শনিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২৩, ১১:২৪ পূর্বাহ্ণ

ভারতের হরিয়ানা রাজ্যের ১৯ বছর বয়সী এক তরুণের বিরুদ্ধে রেড নোটিশ জারি করেছে পুলিশের আন্তর্জাতিক সংস্থা ইন্টারপোল। তার বিরুদ্ধে ভারতে অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র ও একাধিক হত্যাচেষ্টার মামলা রয়েছে। গ্রেফতার এড়াতে বছর দুয়েক আগে ভুয়া পাসপোর্ট বানিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে পালিয়ে যান এই গ্যাংস্টার।

ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা জানিয়েছে, ১৭ বছর বয়সে একটি মামলায় অভিযুক্ত হওয়ায় যোগেশকে জুভেনাইল হোমে পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু সেখান থেকে পালিয়ে যান তিনি। পরে ভুয়ো পাসপোর্ট বানিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান। ভারতের আরেক গ্যাংস্টার লরেন্স বিষ্ণোইয়ের প্রতিদ্বন্দ্বী যোগেশ। বর্তমানে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের বাবিনহা গ্যাংয়ের সঙ্গে যুক্ত।

বলা হচ্ছে, দেশি বন্দুক ও পিস্তল বানাতে অত্যন্ত দক্ষ যোগেশ। এমনকি, তাকে অত্যাধুনিক অস্ত্রের বিশেষজ্ঞ বলেও দাবি করা হয়। ইন্টারপোলের নোটিশে যোগেশের বিরুদ্ধে অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র, হত্যাচেষ্টা, দখল, কয়েকজন সন্ত্রাসীর নিষিদ্ধ অস্ত্র ও গোলাবারুদ ব্যবহারের অভিযোগ আনা হয়েছে।

আরেক ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের বামবিহা গ্যাং ও খালিস্তানি বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সঙ্গেও যোগেশের সম্পর্ক রয়েছে। খালিস্তানপন্থীদের সঙ্গে সম্পর্ক থাকায় তদন্তের জন্য ভারতে তার বাড়ি ও পরিচিত আস্তানায় অভিযান চালিয়েছে জাতীয় তদন্ত সংস্থা (এনআইএ)।

সদস্য দেশগুলোর আইন প্রয়োগকারী কর্তৃপক্ষের অনুরোধে কারও বিরুদ্ধে রেড নোটিশ জারি করে ইন্টারপোল। সংস্থাটি অপরাধীকে প্রত্যর্পণ, আত্মসমর্পণ বা অনুরূপ আইনি প্রক্রিয়া সম্পন্ন না হওয়া পর্যন্ত অভিযুক্ত ব্যক্তিকে খুঁজে বের করা ও সাময়িকভাবে আটক রাখার কাজ করে।

এর আগে, বিদেশে বসবাসকারী ভারতীয় গ্যাংস্টার হিমাংশু ওরফে ভাউয়ের বিরুদ্ধে সব সদস্য দেশে রেড নোটিশ জারি করেছিল ইন্টারপোল। ভারতীয় গোয়েন্দারা বলছে, যোগেশ এবং হিমাংশু বর্তমানে লরেন্স বিষ্ণোই গ্যাংকে উৎখাত করে যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডায় আধিপত্য বিস্তারের পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছে।

গ্যাংস্টার লরেন্স বিষ্ণোই বর্তমানে মাদক চোরাচালান মামলায় আহমেদাবাদ জেলে বন্দী রয়েছেন। তাছাড়া পাঞ্জাবি গায়ক সিধু মুসেওয়ালা হত্যা মামলার আসামিও বিষ্ণোই। এনআইএ তার বিরুদ্ধে তদন্ত করছে।

সম্প্রতি কানাডায় খালিস্তানি বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলনের নেতা সুখদুল সিংকে হত্যার দায় স্বীকার করে শিরোনাম হয়েছেন লরেন্স বিষ্ণোই। সুখদুল, সুখা দুনেকে নামেও পরিচিত। তিনি কানাডায় আন্তঃদলীয় সংঘাতে নিহত হয়েছেন।

এর আগে বলিউড অভিনেতা সালমান খানকে একাধিকবার হত্যার হুমকি দিয়েছেন বিষ্ণোই। চলতি বছরের শুরুর দিকে একটি ই–মেইল পাঠিয়ে সালমানকে হুমকি দেন তিনি। ১৯৯৮ সালে সালমান খান যোধপুরে ফিল্মের শ্যুটিং চলাকালীন দুটি কৃষ্ণসার হরিণ হত্যা করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। তখন থেকেই বিষ্ণোই সম্প্রদায়ের চক্ষুশূল তিনি।







সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ