শনিবার ১৮ মে ২০২৪ ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

টিসিবি’র মাধ্যমে গরুর মাংস আমদানির দাবি
প্রকাশ: রবিবার, ০৭ মে ২০২৩, ০৬:৪২ অপরাহ্ণ

গরুর মাংস সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে আনার জন্য এবং টিসিবির মাধ্যমে গরুর মাংস আমদানির দাবিতে আইনি নোটিশ পাঠানো হয়েছে। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব ও ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) চেয়ারম্যানকে নোটিশটি পাঠানো হয়েছে।

রবিবার (৭ মে) রেজিস্ট্রি ডাকে নোটিশ পাঠান সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. মাহমুদুল হাসান। এতে বলা হয়েছে, গরুর মাংস বাংলাদেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের অন্যতম প্রধান খাদ্য। কিন্তু বাজারে গরুর মাংসের দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে। ৭৫০ থেকে ৮৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে এবং প্রতিনিয়ত দাম বেড়েই চলেছে। গরুর মাংস ইতোমধ্যে নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্ত মানুষের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে।

গরুর মাংসের পুষ্টিগুণ উল্লেখ করে নোটিশে বলা হয়েছে, গরুর মাংস খুবই পুষ্টিকর ও খনিজসমৃদ্ধ খাদ্য। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা চ্যাটজিপিটি’র তথ্য অনুযায়ী, গরুর মাংস অত্যন্ত পুষ্টিকর একটি খাদ্য। এটি প্রোটিনের সমৃদ্ধ উৎস হিসাবে পরিচিত, যা পাতলা পেশী গঠন এবং রক্ষা করে। প্রয়োজনীয় অ্যামিনো এসিড গরুর মাংসের মধ্যে পর্যাপ্ত পরিমাণে পাওয়া যায় যা শারীরিক কার্যক্রমের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। গরুর মাংসে ভিটামিন বি-কমপ্লেক্স (বি১২, বি৬, এবং নায়াসিন) যা স্নায়ু ব্যবস্থা ও শক্তি উৎপাদনে সহায়তা করে। এটি লৌহার একটি ভালো উৎস যা অ্যানিমিয়ার (রক্তস্বল্পতা) ঝুঁকি হ্রাস করে এবং অক্সিজেন বাহনে সাহায্য করে। এছাড়াও গরুর মাংসে জিংক, সেলেনিয়াম, ফসফরাস এবং পটাসিয়াম জাতীয় খনিজ রয়েছে, যা ইমিউন ব্যবস্থা ও ডিএনএ সিন্থেসিসের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

নোটিশে আরও বলা হয়েছে, বাংলাদেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের অন্যতম প্রধান খাদ্য গরুর মাংসের যোগান ও মূল্য নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতার মাধ্যমে সরকার জনগণের খাদ্য নিরাপত্তা সুরক্ষায় ব্যার্থ হয়েছে যা বাংলাদেশের সংবিধানের অনুচ্ছেদ ১৫ এর লঙ্ঘন। অপরদিকে গরুর মাংসের যোগান ও মূল্য নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতার মাধ্যমে সরকার সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের পুষ্টি চাহিদা পুরণে ব্যর্থ হয়েছে। যার দরুন সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ যথাযথ পুষ্টি থেকে বঞ্চিত হয়ে সুস্থভাবে বেঁচে থাকার অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এটা আমাদের সংবিধানের মৌলিক অধিকার ৩১/৩২ এর সরাসরি লঙ্ঘন।

আইনজীবী মাহমুদুল হাসান উল্লেখ করেছেন, আমদানি নীতি ২০২১-২৪ অনুযায়ী গরুর মাংস একটি আমদানিযোগ্য পণ্য। অপরদিকে দিকে ‘দি ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ অর্ডার-১৯৭২’ এর ধারা ১২ অনুযায়ী প্রয়োজনীয় পণ্য আমদানির মাধ্যমে বাজারে পণ্য সরবরাহ নিশ্চিত করে বাজার মূল্য সহনীয় রাখা টিসিবির আইনি কর্তব্য। কিন্তু টিসিবি বিদেশ থেকে গরুর মাংস আমদানি না করে তার আইনি কর্তব্য পালনে ব্যর্থ হয়েছে। অপরদিকে দায়িত্বপ্রাপ্ত এসব মন্ত্রণালয় ও সংস্থার ব্যর্থতার জন্য বাজারে গরুর মাংস নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্ত জনগণের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে। এর ফলে বাংলাদেশ সংবিধানের অনুচ্ছেদ ১৫ ও মৌলিক অধিকার ৩১/৩২ লঙ্ঘন হচ্ছে।

তাই এই আইনি নোটিশ পাওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে অবিলম্বে গরুর মাংসের মূল্য সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে আনার জন্য এবং টিসিবি’র মাধ্যমে গরুর মাংস আমদানি করে বাজারে প্রয়োজনীয় সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। অন্যথায় এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা হিসেবে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হবে বলেও নোটিশে জানানো হয়েছে।







সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ