আড়াইহাজারে ইউনিয়ন পরিষদে ক্ষত-বিক্ষত লাল-সবুজের পতাকা !

0
234

ডেস্ক রিপোর্ট : লাখো শহীদের তাজা রক্তের বিনিময়ে অর্জিত লাল-সবুজের পতাকা আজ ক্ষত-বিক্ষত। নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে মাসের পর মাস ঝুঁলছে জাতীয় পতাকা। রোদ-বৃষ্টি আর ঝড়ে পতাকা ছেঁড়াবেড়া হয়ে থাকলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যেনো একেবারেই উদাসীন। জাতীয় পতাকা অবমাননা আইনে বিষয়টি আইন বহির্ভূত হলেও প্রশাসনের কারো দৃষ্টিগোচরে আসেনি। ঘটনাটি আড়াইহাজার উপজেলার ৯ নম্বর হাইজাদী ইউনিয়ন পরিষদের।
গত মঙ্গলবার দুপুর ১২ টার দিকে এ চিত্র লক্ষ্য করা গেছে। সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যান বিষয়টি ‘খেয়াল’ ছিলোনা বলে প্রতিবেদকের প্রশ্নকে উড়িয়ে দেন। পতাকার অবমাননার বিষয় নিয়ে পরিষদের ‘চেয়ারম্যান’ ও ‘সচিব’ পৃথক বক্তব্য পেশ করেন।
মঙ্গলবার দুপুর ১২ টা। চোখ পড়ে হাইজাদী ইউনিয়ন পরিষদের প্রধান ফটকের দিকে। দেখা গেছে, ফটকের সামনেই ক্ষত-বিক্ষত অবস্থায় রয়েছে লাল-সবুজের পতাকা। বিষয়টি জানতে কথা হয় স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী, পথচারী ও আশপাশের ব্যবসায়ীদের সঙ্গে। তারা বলেন, দীর্ঘদিন ধরে পতাকাটি টাঙ্গানো রয়েছে। এটা নামানো হয়না, উঠানো হয়না। রোদ-বৃষ্টি আর ঝড়ে পতাকা ছিঁড়ে গেছে। নতুন পতাকা লাগানোর কোন উদ্যোগ নেই।

স্থানীয়রা বলেন, ৯ নম্বর হাইজাদী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলী হোসেন ভুঁইয়া ঢাকায় বসবাস করেন। তিনি মাঝে-মধ্যে ইউনিয়ন পরিষদে আসেন। দীর্ঘদিন ধরে ইউনিয়ন পরিষদের পতাকা ছিঁড়ে ঝুলে রয়েছে। ঝলসে গেছে লাল-সবুজের রং। কিন্তু ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, সচিব, ইউপি সদস্য কিংবা কর্তৃপক্ষের কারো দৃষ্টিগোচরে আসেনি। ইউনিয়ন পরিষদের সচিব মাসুম বিল্লাহ বলেন, ঝড়-বৃষ্টির কারণে পতাকাটি ছিঁড়ে গেছে। নতুন পতাকা এনে লাগানো হবে। চেয়ারম্যান আলী হোসেন বলেন, নতুন পতাকা আনা হয়েছে। শীঘ্রই লাগানো হবে।

মঙ্গলবার বিকেল পোনে ৫ টার দিকে আড়াইহাজার উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সোহাগ হোসেনের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আপনাকে ধন্যবাদ হাইজাদী ইউনিয়ন পরিষদ ভবনের জাতীয় পতাকাটি ক্ষতবিক্ষত হয়ে থাকার বিষয়টি জানানোর জন্য। আমি এখনই বলছি হাইজাদী ইউনিয়নের প্রধান ফটকের ছেড়া পতাকাটি পাল্টে নতুন পতাকা লাগানোর জন্য। এছাড়া প্রত্যেকটি সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকার সঠিক ব্যবহারের জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে বলা হবে।####

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here