দাউদপুরে দলীয় প্রতীকে মনোনয়ন পেতে প্রার্থীদের দৌড়ঝাপ

0
322

নিউজ ডেস্ক : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার দাউদপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তফসিল ঘোষণার পর থেকেই দলীয় প্রতীকে মনোনয়ন নিতে সব দলের প্রার্থীদের দৌড়ঝাপ শুরু হয়েছে। গত সেপ্টেম্বর দাউদপুর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন।

তফসিল ঘোষণার পর থেকেই দলীয় প্রতীকে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা সভা সমাবেশ ও নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। এবারের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামলীগ থেকে নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন প্রত্যাশী বর্তমান চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম জাহাঙ্গীর মাষ্টার, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন ভুইয়া ও দাউদপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম রফিক।

অপরদিকে, বিএনপি থেকে দাউদপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে অংশগ্রহন করবে বলে শোনা যাচ্ছে। তবে এখনো কেন্দ্র থেকে কোন সিদ্ধান্ত আসেনি বলে জানা যায়। বিএনপি থেকে ধানের শীষ প্রতীকে মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে দাউদপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান শরীফ আহমেদ টুটুল, দাউদপুর ইউনিয়ন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ভুইয়া ও উপজেলা বিএনপির আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. হেলাল উদ্দীন সরকারের নাম শোনা যাচ্ছে।

স্থানীয় সূত্র ও সরেজমিনে ঘুরে জানা যায়, নৌকা প্রতীক থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী বর্তমান চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম জাহাঙ্গীর মাষ্টারকে হেভিওয়েট প্রার্থী হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। তিনি দাউদপুর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে এলাকার উন্নয়ন ও রাস্তাঘাট নির্মাণ করেন। এছাড়া সাধারণ মানুষের বিপদে আপদে তিনি কাজ করেছেন বলে স্থানীয়রা জানান। তাই তিনি দলীয় প্রতীকে পাওয়ার দৌড়ে এগিয়ে থাকবেন।

অপরদিকে, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন মোল্লা ও রফিকুল ইসলাম রফিকও দলীয় মনোয়ন নিতে দৌড়ঝাপ চালিয়ে যাচ্ছেন।

অপরদিকে, বিএনপি থেকে ধানের শীষ প্রতীকে দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার দৌড়ে অনেকটা এগিয়ে রয়েছেন শফিকুল ইসলাম। তিনি দলের খারাপ সময়ে সর্বদা মাঠে কাজ করে গেছেন। দলীয় কার্যক্রম পালন করতে গিয়ে তিনি বেশকয়েকবার মামলা হামলার শিকার হয়েছেন। এছাড়া শরীফ আহমেদ টুটুল অ্যাড. হেলাল উদ্দীন সরকার দলীয় প্রতীকে মনোনয়ন পেতে কেন্দ্রে লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন বলেও শোনা যাচ্ছে।

নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন প্রত্যাশী নুরুল ইসলাম জাহাঙ্গীর মাষ্টার বলেন, আমি চেয়ারম্যান থাকাকালীন সময়ে ইউনিয়নবাসীর বিপদে আপদে সব সময় পাশে থেকেছি। এছাড়া ইউনিয়নের রাস্তাঘাটের ব্যাপক উন্নয়ন করেছি। জনগণ সব সময়ই আমাকে চায়। তাই আমি দলীয় নৌকা প্রতীক পাব বলে আশা করছি।

আরেক মনোনয়ন প্রত্যাশী তোফাজ্জল হোসেন মোল্লা জানান, দলীয় প্রতীকে মনোনয়ন পেলে আমি নির্বাচন করবেন আর মনোনয়ন না পেলে নির্বাচনে অংশগ্রহন করবেন না।

বিএনপি থেকে ধানের শীষের মনোনয়ন প্রত্যাশী শফিকুল ইসলাম জানান, তিনি দলের বিপদের সময় মাঠে থেকে কাজ করে গেছেন তাই মনোনয়ন পাওয়ার ব্যপারে তিনি আশাবাদী। তিনি দলীয় মনোনয়ন পেলে সুষ্ঠু নির্বাচন হলে তিনি বিজয়ী হবে বলে আশা করছেন। এছাড়া অন্যান্য মনোনয়ন প্রত্যাশীরা দলীয় প্রতীক পাওয়ার আশাবাদি বলে জানান।

উল্লেখ্য, গত ১৩ সেপ্টেম্বর ঘোষণাকৃত নির্বাচনী তফসিলে বলা হয়, আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিন, ২৬ সেপ্টেম্বর মনোনয়ন যাচাইবাছাই, প্রত্যাহার ৩ অক্টোবর ও ২০ অক্টোবর ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাচন কমিশনার মাহবুবুর রহমান বলেন, নির্বাচন সুষ্ঠু করতে সকল ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হচ্ছে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here