সাধারণ ও মাদ্রাসা শিক্ষায় কারিগরি বাধ্যতামূলক করছি: শিক্ষামন্ত্রী

0
79

নিউজ ডেস্ক : স্কুল ও মাদ্রাসায় কারিগরি শিক্ষা বাধ্যতামূলক করার পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

তিনি বলেন, ২০২১ সালে ষষ্ঠ শ্রেণি থেকে বাধ্যতামূলকভাবে এটা চালুর কথা থাকলেও সম্ভব হয়নি। তবে ২০২২ সালে এটি চালু করা হবে। সে লক্ষ্যে প্রস্তুতি এগিয়ে চলছে।

সোমবার দুপুর ২টায় ‘কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা: এসডিজি অর্জনে করণীয়’ শীর্ষক ভার্চ্যুয়াল সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব বলেন।

এডুকেশন রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ (ইরাব) আয়োজিত সেমিনারটি জুমের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খাঁন, বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মো. আবুল কাশেম, বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক কায়সার আহমেদ, বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. মোরাদ হোসেন মোল্লা।

ইরাব সভাপতি মুসতাক আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন সংগঠনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাব্বির নেওয়াজ। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সংগঠনের কোষাধ্যক্ষ শরিফুল আলম সুমন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন ইরাবের সাধারণ সম্পাদক নিজামুল হক।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ শাহজাহান আলম সাজু, জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের মহাসচিব মাওলানা শাব্বির আহমদ মোমতাজী, টেকনিক্যাল এডুকেশন কনসোর্টিয়াম অব বাংলাদেশ (টেকবিডি) সভাপতি প্রকৌশলী আব্দুল আজিজ, কারিগরি শিক্ষা কল্যাণ সমিতির সভাপতি নাজমুল ইসলাম, স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসা শিক্ষক পরিষদের সভাপতি মাওলানা জয়নুল আবেদিন জিহাদী, ইরাব সাংগঠনিক সম্পাদক এম এম জসিম, প্রচার সম্পাদক রশিদ আল রুহানী, আইসিটি সম্পাদক মুরাদ হোসাইন ও সদস্য তানিয়া আক্তার।

সেমিনারে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেন, কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষার হার ভবিষ্যতে আরো বৃদ্ধি পাবে। আমরা প্রতিটি উপজেলায় একটি করে কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নির্মাণ করছি। এগুলো হবে অত্যন্ত আধুনিক মানের। নিয়োগ করা হবে দক্ষ শিক্ষক। এতে থাকবে আধুনিক বিভিন্ন ট্রেড।

তিনি বলেন, ‘জনগোষ্ঠীকে দক্ষ করে গড়ে তুলতে সাধারণ শিক্ষা ও মাদ্রাসা শিক্ষায়ও আমরা কারিগরি শিক্ষা বাধ্যতামূলক করছি। ২০২১ সালে চালু করার ইচ্ছা ছিল। কিন্তু করোনার পরিস্থিতেতে সেটা সম্ভব হচ্ছে না। তবে এই পরিস্থিতি দীর্ঘস্থায়ী না হলে আশা করছি ২০২২ সালে সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা চালু করতে পারব। নবম-দশম শ্রেণিতেও কারিগরি শিক্ষার অন্তত দুটি ট্রেড বাধ্যতামূলক করার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে’।

প্রধান অতিথি বঙ্গবন্ধুর শিক্ষাভাবনা বাস্তবায়নে গুরুত্বারোপ করে বলেন, জাতির জনক বিজ্ঞানমনস্কতা, কর্মমুখী ও বাস্তবমুখী শিক্ষার ওপর জোর দিয়েছিলেন। পরিবর্তিত পরিস্থিতি গ্রহণের মানসিকতা ও অভিযোজনের ইচ্ছা থাকতে হবে। সেজন্য মনের দরজা জানালাটাকে খোলা রাখতে হবে। সময়ের সঙ্গে নিজেকে উপযোগী করে নেয়া এবং মনে রাখতে হবে কোনো কাজই ছোট নয়।

শিক্ষামন্ত্রী আরো বলেন, ‘কারিগরির প্রসারে প্রয়োজন মান উন্নয়ন। আমাদের দীর্ঘদিন শিক্ষক নিয়োগ হয়নি। সেই নিয়োগ দেওয়ার বড় উদ্যোগ নিয়েছি। শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দিতে হবে। মানসম্মত ল্যাবরেটরি, তাতে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি ইত্যাদি থাকতে হবে। এ শিক্ষায় শিল্পপ্রতিষ্ঠানের সঙ্গে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংযোগ থাকা খুব জরুরি। এ নিয়েও সরকার কাজ করছে’।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘ইবতেদায়ি শিক্ষকদের বিষয়টি আমরা অবগত আছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিষয়টি খুব গুরুত্ব সহকারে দেখছেন। খুব শিগগিরই তাদের এমপিওভুক্তির আওতায় নিয়ে আসার চিন্তাভাবনা রয়েছে। এ ছাড়া এমপিওভুক্তকরণের ক্ষেত্রে যেসব সমস্যা রয়েছে সেগুলো ঠিক করতে আমরা কাজ শুরু করেছি। এমপিও নীতিমালা পরিবর্তনের ক্ষেত্রে অবশ্যই ইবতেদায়ি মাদ্রাসার বিষয়টি অন্তর্ভূক্ত করা হবে। তবে এ খাতে অর্থ বরাদ্দ ছিল না। অর্থের জন্য আমরা লিখেছিলাম’।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো.আমিনুল ইসলাম খান বলেন, প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা বৃদ্ধি করা খুবই প্রয়োজন। ইতিমধ্যে কারিগরি শিক্ষায় বয়স উঠিয়ে দেওয়া হয়েছে যাতে সবাই শেখার সুযোগ পায়। এছাড়া মানসম্মত শিক্ষাটাও খুব দরকার।

বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মো. আব্দুল কাশেম বলেন, ‘কারিগরি শিক্ষা বোর্ডকর্তৃক আয়োজিত তিন থেকে ছয় মাস মেয়াদী সংক্ষিপ্ত কোর্সটি একজন অষ্টম শ্রেণি থেকে মাস্টার্স পর্যন্ত যেকোনো শিক্ষার্থীর এর মাধ্যমে কর্মসংস্থান করতে পারে। এ কোর্স সম্পন্ন করলে কোনো শিক্ষার্থীর চাকরি পেতে অসুবিধা হবে না। তাই কারিগরি শিক্ষায় মানসম্পন্ন শিক্ষা যদি সম্ভব হয় সেটা যে স্তরেই হোক না কেন তার কর্মসংস্থানের অভাব হয় না। তাই মানসম্পন্ন শিক্ষাটা খুব জরুরি’।

বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মোরাদ হোসেন মোল্লা বলেন, ‘২০৩০ সালের মধ্যে ৩০ শতাংশ এবং ২০৪০ সালের মধ্যে ৫০ শতাংশ শিক্ষার্থীকে কারিগরি শিক্ষায় শিক্ষিত করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড কাজ করে যাচ্ছে। প্রতিবছর ২৩-২৮ লাখ লোক শ্রমবাজারে যুক্ত হচ্ছে। শিল্পপ্রতিষ্ঠানের চাহিদা অনুযায়ী এই জনশক্তিকে কারিগরি শিক্ষায় দক্ষ করে তুলতে হবে’।

বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক কায়সার আহমেদ মাদ্রাসা শিক্ষার মান উন্নয়নে সবার সমান সুযোগ, শিক্ষকদের জীবনমানের উন্নয়ন, বৃত্তি সম্প্রসারণ, জীবনব্যাপী শিক্ষা লাভের সুযোগ এবং মাদ্রাসায় বাণিজ্য বিভাগ চালুর ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here