রূপগঞ্জে মামলা তুলে নিতে বাদীনি ও পরিবারকে হত্যার হুমকি

0
324

ডেস্ক রিপোর্ট : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে হত্যার উদ্দেশ্যে কুপিয়ে গুরুতর আহত করার মামলা তুলে নিতে সরুফা আক্তার নামে মামলার বাদীনি ও তার পরিবারকে গাড়ি চাপা দিয়ে প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনায় বুধবার (৩১ মার্চ) দিবাগত রাতে রূপগঞ্জ থানায় একটি সাধারন ডায়েরী করেছেন ওই ভুক্তভোগী।

এদিকে গত ২৭ মার্চ আদালত থেকে জামিন নিয়ে ওই মামলার আসামিরা সরুফা আক্তারকে এ হুমকি দিয়ে আসছেন বলে জানা গেছে। সেই সঙ্গে তার পরিবারের সকল সদস্যকে সুযোগ বুঝে হত্যা করবে বলেও হুমকি দেয় তারা।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, গত ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর মাসে উপজেলার সুরিয়াবো জামে মসজিদ পরিচালনা কমিটি নিয়ে শত্রুতা শুরু হয় ওই এলাকার মোহাম্মদ আলী ও আয়েত আলীর পরিবারের সঙ্গে। তখন নানা অনিয়মের অভিযোগে মোহাম্মদ আলীর ছেলে মো. ফারুককে বাদ দিয়ে আয়েত আলীর ছেলে ইয়াসিনকে সাধারন সম্পাদক পদে নিযুক্ত করেন মসজিদ কমিটি। এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে ফারুকসহ তার পরিবারের লোকজন মসজিদে হামলা চালিয়ে কুপিয়ে জখম করে ইয়াসিনের পরিবারের লোকজনকে। এ ঘটনায় থানায় অভিযোগের পরে গ্রাম্য সালিশে বিষয়টি মিমাংসা হলেও ভেতরে ভেতরে শত্রুতা ধরে রেখেছেন ফারুকসহ তার পরিবার। ওই ঘটনার পর থেকে ছোট খাট বিষয় নিয়েও উভয় পরিবারের সঙ্গে কলহ লেগেই থাকতো।

আরও জানা যায়, পূর্ব শত্রুতার ওই ধারাবাহিকতায় গত ২ মার্চ সন্ধ্যা রাতে জাঙ্গীর ঈদগাহ বাজারে অয়েত আলীর মুদি মনোহরী দোকানে হামলা চালায় মোহাম্মদ আলীর ছেলে আবুল কালাম ও তার ভাতিজা হাসান মিয়া। এ সময় আয়েত আলীকে (৬৫) হত্যার উদ্দেশ্যে মাথায় কুপিয়ে গুরুতর আহত করে তারা। এ সময় আয়েত আলীর ডাক চিৎকার শুনে বাজারের লোকজন এগিয়ে এলে তারা দ্রুত পালিয়ে যায়। পরে বাজারের ব্যবসায়ী ও পরিবারের লোকজন আয়েত আলীকে দ্রুত উদ্ধার করে রূপগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করায়। এ ঘটনায় ওই দিন রাতেই অভিযুক্ত ৫ জনকে আসামি করে রূপগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন সরুফা আক্তার। আসামিরা হলেন- উপজেলার সুরিয়াবো গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে আবুল কালাম (৩০), তার ভাই ফারুক (৩৫), ওমর আলী (৩৯), তার ছেলে হাসাস (৩০) ও তার বাবা মোহাম্মদ আলী (৫৫)।

ভুক্তভোগী সরুফা আক্তার বলেন, বাদীনির পরিবার ও তার ভাইদের সুযোগ পেলেই মামলা দিয়ে চিরদিনের জন্য জেলে আটকে রাখাসহ হত্যার হুমকি দিয়ে আসছেন মামলা আসামিরা। এমনকি আশপাশের গ্রামের কোন গুরুতর ঘটনার মামলায় বাদীনিকে ফাঁসিয়ে দিতেও পরিকল্পনাসহ চেষ্টা চালায় ওই লম্পটরা। এতে চরম নিরাপত্তাহীনতা ভুগছেন বাদীনি ও তার পরিবারের লোকজন।

এসব বিষয়ে রূপগঞ্জ থানার ওসি (ইন্সপেক্টর) জসিম উদ্দিন বলেন, বাদীনির নিরাপত্তা বিষয়ে পুলিশ তৎপর রয়েছে। আর হুমকী দাতাদের দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here