“আমাদের স্বাধীনতার প্রতীক বঙ্গবন্ধু” : পাটমন্ত্রী গাজী

0
125
ডেস্ক রিপোর্ট : বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীক বলেছেন, “আমাদের স্বাধীনতার প্রতীক বঙ্গবন্ধু। তিনিই আমাদের স্বাধীনতার ঘোষক। বঙ্গবন্ধু ১৯৭১ সালের ২৬ শে মার্চ বাংলাদেশ স্বাধীন তা ঘোষণা দেয়। আমরা বঙ্গবন্ধুর ডাকে যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছি।”
মহান স্বাধীনতা দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে শুক্রবার (২৬ মার্চ) দুপু‌রে নারায়ণগ‌ঞ্জের রূপগঞ্জ উপ‌জেলার মুড়াপাড়া এলাকায় রূপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগ আয়োজিত দোয়া ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।
বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীক বলেন, “বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে বাংলাদেশ স্বাধীন হতো না। ৭ মার্চের ভাষণকে অস্বীকার করা মানে বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে অস্বীকার করা। বঙ্গবন্ধু শুধু বাঙালির না। উনি সারা বিশ্বের নেতা। ৭ মার্চের ভাষণ শুধু বাংলাদেশ নয়, সারা বিশ্ববাসির একটি সম্পদ। পরাধীন জাতির মুক্তির একটি ঐতিহাসিক বার্তা। বঙ্গবন্ধু ছিলেন বিশ্বের শোষিত মানুষের কন্ঠস্বর। যেখানেই অন্যায় অবিচার ছিলো সেখানেই বঙ্গবন্ধু প্রতিবাদ করেছেন।
মন্ত্রী বলেন, “স্বাধীনতার ঘোষণা নিয়ে অনেক ষড়যন্ত্র হয়েছে। বঙ্গবন্ধুই আমাদের স্বাধীনতার একমাত্র ঘোষক। অন্যরা পাঠক। তারা বঙ্গবন্ধুর পক্ষে ঘোষণা পত্রপাঠ করেছে। পাঠক কখনো ঘোষক হতে পারে না।”
রূপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি গোলাম দস্তগীর গাজী বলেন, রূপগঞ্জে ২০০৪ সাল থেকে আমরা বহু মিটিং করেছি। মিটিংয়ে এত নারী আমরা দেখি নাই। জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নারী সমাজ রাজনীতিতে এগিয়ে আসছে। ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপি যখন ক্ষমতায় তখন তারা মাঠে ছিলো না। মাঠে ছিলাম আমরা। এখন আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় বিএনপি মাঠে নামতে পারে না। মাঠে থাকে আমাদের দলের নেতাকর্মীরা। আমাদের দলের সংগঠন খুবই শক্তিশালী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন আমাদের সংগঠন আগে। এই সংগঠনের মাধ্যমে আমরা ক্ষমতায় এসেছি। সংগঠনকে মূল্যায়ন করে বলে আজ আওয়ামী লীগ এগিয়ে যাচ্ছে। সবাই আমাদের সংগঠনকে ভালোবাসবেন। মুক্তিযোদ্ধাদের কথা মনে রাখবেন। চেয়ারম্যান যারা আছেন তারাও সংগঠনকে মূল্যায়ন করবেন।
তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী আমরা এক সাথে পালন করতে পারছি। এটা আমাদের সৌভাগ্য। আমরা যারা বেঁচে আছি তারা আর বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ পালন করতে পারব না। এটাই আমাদের জীবনে শেষ।
গোলাম দস্তগীর গাজী বলেন, “বিএনপি বঙ্গবন্ধুর ভাষণ বাজানো শুনলেই হামলা-মামলা করেছে। শুধু তাই নয়, বঙ্গবন্ধুর নাম উচ্চারণ করতে দেয় নাই। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর বিএনপি জামায়াত স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি মুক্তিযোদ্ধাদের নাম শুলে মামলা-হামলা করেছে। ১৯৯৬ সালে জাতির পিতার কন্যা শেখ হাসিনা রাষ্ট্র ক্ষমতা গ্রহণ করলে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা পুনপ্রতিষ্ঠিত হয়। বঙ্গবন্ধুর কন্যা সকল মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা বৃদ্ধি করেছেন।
তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমাপ্ত করার জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। তার নেতৃত্বে দেশ উন্নয়নের মহাসড়কে এগিয়ে যাচ্ছে।
সভায় সভাপতিত্ব করেন, রূপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শাহ্জাহান ভুঁইয়া।
 এ সময় উপ‌স্থিত ছিলেন, রূপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি শেখ সাইফুল ইসলাম, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান শাহ‌রিয়ার পান্না সো‌হেল, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সৈয়দা ফেরদৌসী আলম নীলা, মুড়াপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তোফায়েল আহমেদ আলমাছ, উপ‌জেলা ছাত্রলী‌গের সা‌বেক সভাপ‌তি তা‌বিবুল কা‌দির তমাল, উপ‌জেলা যুবলী‌গের সভাপ‌তি কামরুল হাসান তু‌হিন, সাধারন সম্পাদক মোস্তা‌ফিজুর রহমান শা‌হিন, রূপগঞ্জ ইউ‌নিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা মোহাম্মদ আনছার আলী, উপ‌জেলা স্বেচ্ছা‌সেবকলী‌গের সভাপ‌তি মাহাবুবুর রহমান মে‌হের, সাধারন সম্পাদক নাঈম ভুঁইয়া, উপ‌জেলা ম‌হিলালী‌গের সাধারন সম্পাদক শীলা রানী পাল, উপ‌জেলা যুবম‌হিলালী‌গের সভাপ‌তি ফের‌দৌসী আক্তার, সাধারন সম্পাদক সে‌লিনা আক্তার রিতা, উপ‌জেলা ছাত্রলী‌গের সভাপ‌তি ফয়সাল সিকদার, সাধারন সম্পাদক শেখ ফ‌রিদ ভুঁইয়া মাসুম, মুড়াপাড়া সরকারী ক‌লেজ ছাত্র সংস‌দের ভি‌পি সাইফুল ইসলাম তু‌হিন, মুড়াপাড়া সরকারী ক‌লেজ ছাত্র সংস‌দের জিএস সা‌দিকুল ইসলাম স‌জিবসহ আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, ম‌হিলালীগ, যুবম‌হিলালীগ ও শ্রমিকলীগের নেতাকর্মীরা উপ‌স্থিত ছি‌লেন।
সভায় সঞ্চালনা ক‌রেন, রূপগঞ্জ উপ‌জেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক আব্দুল আজিজ।
পরে অতিথিবৃন্দ মু‌ক্তিযু‌দ্ধের বীর শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় বিশেষ মোনাজাত করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here