এবার শহীদ মিনারে মন্ত্রী গাজীর সামনে যুবলীগের সংষর্ষ, আহত-১০

0
1008

ডেস্ক রিপোর্ট : আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস ও শহীদ দিবস উপলক্ষ্যে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে শহীদ মিনারে আগে-পরে পুষ্পস্তবক অর্পণ করাকে কেন্দ্র করে পাট ও বস্ত্রমন্ত্রীর উপস্থিতিতে যুবলীগের দুই গ্রুপের মাঝে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় নেতাকর্মীদের নিয়ে ব্যপক সমালোচনা করেছেন এলাকাবাসী।

গতকাল রবিবার (২১ ফেব্রুয়ারী) সকালে উপজেলার তারাব পৌরসভার সুলতানাকামাল সেতু সংলগ্ন শহীদ মিনারে ঘটে এ ঘটনা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকাল ৯টার দিকে পাট ও বস্ত্রমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী (বীরপ্রতিক) ও তার সহধর্মীনি তারাব পৌরসভার মেয়র মিসেস হাসিনা গাজীসহ নেতাকর্মীরা সুলতানাকামাল সেতু সংলগ্ন শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করতে যান। এসময় তারাব পৌর যুবলীগের সাধারন সম্পাদক রুহুল আমিন ফরাজিসহ তার লোকজন পুষ্পস্তবক অর্পণ করতে শহীদ মিনারের সামনে অবস্থান করেন। এছাড়া তারাবা পৌর যুবলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক আনোয়ার হোসেনসহ তার লোকজনও পুষ্পস্তবক অর্পণ করতে শহীদ মিনারের সামনে অবস্থান নেন। এসময় আগে-পরে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা নিয়ে উভয় গ্রুপের লোকজনের সাথে তর্কবিতর্ক হয়। এক পর্যায়ে উভয় গ্রুপের লোকজনই পাট ও বস্ত্রমন্ত্রীর উপস্থিতিতেই একে অপরকে কিলঘুষি মেরে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন।

 

এতে নাঈম, তানহা, অপু, রোবেলসহ অন্তত ১০ জনের মতো নিলাফুলা জখম হয়েছেন বলে জানা গেছে। এদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। পরে মন্ত্রী ও উপস্থিত পুলিশ প্রশাসনের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করা হয়। দুই পক্ষই ঘটনার সত্যতা শিকার করেন। এ ধরনের ঘটনাকে ন্যাক্কারজনক বলে মনে করেন স্থানীয় এলাকাবাসী।

স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, গত ১৬ জানুয়ারী তারাব পৌরসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ওই নির্বাচনে তারাব পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী ছিলেন, আনোয়ার হোসেন ও প্রতিদ্বন্ধি প্রার্থী ছিলেন রুহুল আমিন ফরাজি। নির্বাচনে প্রচারনাকে কেন্দ্র করে গত ১২ জানুয়ারী রাতে দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। এসময় দুই পক্ষই একে অপরকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেন এক পর্যায়ে সংঘর্ষটি রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে পরিণত হয়। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত অর্ধশতাধীক আহত হয়। ব্যপক হামলা, ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনাও ঘটে। এসব ঘটনাকে কেন্দ্র করে আনোয়ার হোসেনের সঙ্গে রুহুল আমিন ফরাজি শত্রুতা সৃষ্টি হয়।

এর আগে, গত শুক্রবার (১৯ ফেব্রুয়ারী) সকালে পাট ও বস্ত্রমন্ত্রীর বাসভবনে মন্ত্রীর উপস্থিতিতেই কাঞ্চন পৌর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক গোলাম রসুল কলির লোকজনের সঙ্গে পৌর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও পৌর প্যানেল মেয়র পনির হোসেনের লোকজনের মাঝে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

এ বিষয়ে রুহুল আমিন ফরাজি বলেন, আমরা শহীদ মিনারে শান্তিপুর্ন ভাবে পুষ্পস্তবক অর্পণ করতে গেলে আনোয়ার হোসেনসহ তার লোকজন বাঁধা দিলে ঘটনা ঘটে। অপর দিকে আনোয়ার হোসেন বলেন, রুহুল ফরাজিসহ তার লোকজনই বাঁধার সৃষ্টি করে এ ঘটনা ঘটায়।

এ বিষয়ে জানতে উপজেলা যুবলীগের সভাপতি কামরুল হাসান তুহিনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, রূপগঞ্জে যুবলীগ শক্তিশালী। শহীদ মিনারের সামনে যুবলীগ নেতাকর্মীদের উপস্থিতি বেশি ছিলো। ফুল দেয়া নিয়ে ধাক্কাধাক্কি হয়েছে কিন্তু কারো সঙ্গে কোন বিরোধ নেই। সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটেনি।

রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মহসিনুল কাদির বলেন, যুবলীগের দুই গ্রুপের হাতাহাতির ঘটনার সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে উভয় পক্ষকে সরিয়ে দেয়া হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here